আহমেদ সাব্বির রোমিও :

সোনিয়া আক্তার লাজুক। মিডিয়াতে বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী একজন সাংস্কৃতিককর্মী। নাচ, অভিনয়, মডেলিং, উপস্থাপনা প্রতিটি ক্ষেত্রেই তার যেন রয়েছে বলিষ্ঠ পদচারণা। এক কথায় বলতে গেলে ” একের ভিতর চার “!
মাত্র তিন বছর বয়সে মায়ের হাত ধরে নাচের স্কুলে যাতায়াত শুরু হয় লাজুকের। নাচের উপর প্রথম তালিম নেন নৃত্য প্রশিক্ষক করবী আহমেদ বিউটির নিকটে। এরপরে নাচের উপর তালিম নেন নৃত্য প্রশিক্ষক মনিরুল ইসলাম মুকুলের নিকট থেকে। লাজুক জানান, ” মূলত উচ্চাঙ্গনৃত্য বলতে প্রধানত ভরতনাট্যম, কথাকলি, কত্থক, ওড়িশি ও মণিপুরী নৃত্যকে বোঝায়। এগুলি প্রাচীন ভারতের একেকটি বিশেষ ধরনের নৃত্যশৈলী এবং বাংলাদেশসহ সর্ব ভারতে প্রচলিত। আমার উচ্চাঙ্গনৃত্যের উপর দখলটা বেশ ভালোই রয়েছে। আমি বিটিভির একজন তালিকা ভুক্ত নৃত্য শিল্পী। উচ্চাঙ্গনৃত্যের জন্য আমি চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম বাংলাদেশ শিশু একাডেমি আয়োজন জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগীতায়, জাতীয় পদ্মকলি নৃত্য প্রতিযোগীতাতেও আমি নাচে চ্যাম্পিয়ন। কলেজে উঠে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহতেও আমি নাচে জাতীয় পর্যায়ে প্রথম হই। মূলত উচ্চাঙ্গনৃত্যের উপর দখলটা থাকায় আমার জন্য অভিনয় করাটা অনেকটাই সহজতর হয়েছে। তারপরও মঞ্চ নাটকের উপর প্রশিক্ষণ নিয়েছি। উচ্চরণ এর উপরেও প্রশিক্ষণ নেয়া আছে আমার। বিটিভিতে আমাার প্রথম নাটক পরিচালক ছিলেন মোহাম্মদ মনজুর। ওটাই আমার ক্যামেরার সামনে প্রথম আসা। এর পরে একই পরিচালকের আরো একটি নাটকে আমি অভিনয় করি। নাটকটির নাম” নিসংগ কান্না ” ওই নাটকটিও বিটিভিতে প্রচার হয়েছিল। ”
লাজুক বর্তমানে অভিনিত নাটক গুলো হচ্ছে, অপূর্ব আমিনের ধারাবাহিক নাটক ” আলাল দুলাল “, পরিচালক এস এম দুলাল এর ওয়েব সিরিজ ” সাইকো “, আকাশ সরকারের ” পাসওয়ার্ড “। অভিনয় করছেন পরিচালক মুরাদ পারভেজের ধারাবাহিক নাটকেও। অভিনয়ের পাশাপাশি অংশ নিয়েছেন পরিচালক বনি চৌধুরী নির্মিত টিভিসি গৌরব জুয়েলার্সের। এছাড়া লাজুকের আরো একটি টিভিসি প্রচার হচ্ছে সেটা হোলো একটি ডিটারজেন্ট পাউডারের ” রিয়েল পাওয়ার হোয়াইট” । মডেল হয়েছেন ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড জুয়েলার্সের।
বেশ কিছু মিউজিক্যাল ফিল্মের মডেল ও হয়েছেন এই তরুণী। এইতো মাত্র কিছু দিন আগে জনপ্রিয় অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবুর গাওয়া ” চাঁদ কুমারীর মেয়ে”র মিউজিক্যাল ফিল্মের মডেল হিসেবে দেখা গেছে তাকে।
পত্রিকা ও ফ্যাশান ম্যাগাজিনে মডেলের হওয়ার পাশাপাশি উপস্থাপনাও করেছেন সুন্দরী সদা হাস্যউজ্জ্বল এই তরুণী। উপস্থাপনার শুরুটা ছিলো চ্যানেল সিক্সটিন দিয়ে। এরপর একে একে বাংলা টিভি, মোহনা টিভি, ম্যাজিক বাংলা টিভি, বঙ্গ টিভির বিভিন্ন অনুষ্ঠানে।

পরিশেষে লাজুক জানান , “সাংকৃতিক অংগনে পথ চলার পিছনে আমার মা হচ্ছেন আমার প্রধান অনুপ্রেরণা। তার হাত ধরে মাত্র তিন বছর বয়সে পথ চলা শুরু করেছিলাম। অনেক বাঁধা, অনেক প্রতিকুলতার মাঝেও আজো সেই পথ চলা অব্যাহত রেখেছি। কোন বাঁধাই আমাকে দমিয়ে রাখতে পারে নি। এই মিডিয়াই এখন একমাত্র আমার ধ্যান, জ্ঞান, সাধণা। সকলের সহযোগিতা নিয়ে আমি এগিয়ে যেতে চাই আমার কাঙ্খিত লক্ষ্যে। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি যেন সফল হতে পারি “।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here